STOCK BANGLADESH
center for financial analysis
LOGIN
BDF| BERGERPBL| DBH| DELTALIFE| EXCH| FEDERALINS| ISLAMIBANK| JANATAINS| MERCANBANK| ORIONPHARM| PREMIERBAN| PRIMEBANK| REGL| SONARBAINS| YPL| All
Search By Symbol:
- - TO - - (dd-mm-yyyy)
   


Search By Date:
- - TO - -
(dd-mm-yyyy)


DSE NEWS
Post Date: 25 May, 2017

তৃতীয় দিনের মতো দেশের দুই পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচক ঊর্ধ্বমুখী রয়েছে। সপ্তাহের চতুর্থ কার্যদিবস গতকাল বুধবার ডিএসইতে সূচক বাড়লেও কমেছে লেনদেন আর সিএসইতে সূচক ও লেনদেন উভয়ই বৃদ্ধি পেয়েছে। অন্যদিনের লেনদেন কমেছে আর শেয়ার বিক্রির চাপে জীবনবীমা ও প্রকৌশল খাতে শেয়ারের দাম তুলনামূলক বেশি কমেছে।

ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৫৪৪ কোটি ৪৪ লাখ টাকা আর সূচক বেড়েছে প্রায় ১৮ পয়েন্ট। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৬১২ কোটি ৭৮ লাখ টাকা। আর সূচক বেড়েছিল ৯ পয়েন্ট।

আইডিএলসির বাজার পর্যবেক্ষণ বলছে, ডিএসইতে লেনদেনে ছিল ধীরগতি, যা আগের দিনের চেয়ে ১১ শতাংশ কমেছে। বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাত ১৪.৮ শতাংশ লেনদেনের মাধ্যমে শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে। সিরামিকস খাতের শেয়ারের দাম ২.২ শতাংশ বেড়েছে। এতে আরএকে সিরামিকসের শেয়ারের দাম বেড়েছে ২.৫ শতাংশ। অন্যদিকে শেয়ার বিক্রির চাপে জীবনবীমা ও প্রকৌশল খাতের শেয়ারের দাম যথাক্রমে ০.৯ শতাংশ ও ০.৪ শতাংশ কমেছে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, লেনদেন শুরুর পর থেকে সূচক ঊর্ধ্বমুখী হলেও লেনদেন ছিল খুবই ধীরগতি। এতে দিনশেষে সূচকের ঊর্ধ্বমুখিতায় বাজার শেষ হলেও কমেছে লেনদেন। ডিএসইর প্রধান সূচক দাঁড়িয়েছে পাঁচ হাজার ৪১২ পয়েন্ট। ডিএস-৩০ মূল্যসূচক ১১ পয়েন্ট বেড়ে দুই হাজার ৯ পয়েন্ট ও ডিএসইএস শরিয়াহ সূচক ৫ পয়েন্ট বেড়ে এক হাজার ২৬৩ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। লেনদেন কম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ১২৯টির, কমেছে ১৪৩টির ও অপরিবর্তিত রয়েছে ৫২টি কম্পানির শেয়ারের দাম।

লেনদেনের ভিত্তিতে শীর্ষে রয়েছে ইফাদ অটোস। কম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ২৬ কোটি ২৫ লাখ টাকা।

সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৪০ কোটি ৮০ লাখ টাকা আর সূচক বেড়েছে ১৯ পয়েন্ট। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৩১ কোটি ১৯ লাখ টাকা। আর সূচক বেড়েছিল ২৯ পয়েন্ট। গতকাল লেনদেন হওয়া ২৩৭ কম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ১০১টির, কমেছে ১০১টির ও অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৫টি কম্পানির শেয়ারের দাম।

source : kalarkontho



DSE NEWS
Post Date: 25 May, 2017
বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে পুঁজিবাজারে আসতে চুক্তি করেছে মডার্ন স্টিল মিলস লিমিটেড। আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেডের হাত ধরে বাজারে আসতে চায় কোম্পানিটি। আর রেজিস্টার টু দ্য ইস্যুর দায়িত্ব পালন করবে লংকাবাংলা ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড। বুধবার আইসিবির কার্যালয়ে এই সংক্রান্ত একটি ত্রিপক্ষীয় চুক্তি সই হয়েছে।

নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি সই করেন মডার্ন স্টিল মিলসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ মিজানুর রহমান ও আইসিবির মহা-ব্যবস্থাপক কামাল হোসেন চৌধুরী এবং লঙ্কাবাংলা ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী (সিইও) কর্মকর্তা খন্দকার কায়েস হাসান।

অনুষ্ঠানে রতনপুর গ্রুপের চেয়ারম্যান মাকসুদুর রহমান বলেন, আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সব সময় চিন্তা করি নিজে কি পেলাম সেটি আসল কথা নয় দেশকে কী দিতে পারলাম সেটিই বড় কথা। এই চিন্তা করেই আমাদের কোম্পানি ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। তিনি বলেন, ব্যবসা সম্প্রসারণ করার জন্য মডার্ন স্টিলকে পুঁজিবাজারে নিয়ে আসতে চাই। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কত টাকা বাজার থেকে তুলতে পারব এটি ঠিক করবে ইস্যু ম্যানেজার।

লংকাবাংলা ক্যাপিটাল মার্কেট অপারেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন চৌধুরী বলেন, পুঁজিবাজার লাখ লাখ মানুষের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র সঞ্চয়কে একত্র করে নিয়ে আসে, সেখান থেকে এটি বিনিয়োগে পরিণত হয়। যার যার দরকার তারা পুঁজিবাজার থেকে অর্থ নিয়ে শিল্প-বাণিজ্যের সম্প্রসারণ করেন।

চুক্তি সই অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, মডার্ন স্টিল মিলসের সচিব জাফর ইমাম, আইসিবি ক্যাপিটালের পরিচালক রফিকুল ইসলাম, ডিজিএম সোহেল রানা, ডিপুটি সিইও জাহাঙ্গীর আলম, এক্সিকিউটিভ অফিসার ফজলুল হক, লংকাবাংলা ইনভেস্টমেন্টের প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা হাছান জাভেদ চৌধুরী, হেড অব প্রাইমারি মার্কেট অপারেশন ইফতেখার আলমসহ প্রমুখ
source : jonokontho


DSE NEWS
Post Date: 25 May, 2017
দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) বুধবার মূল্য সূচকের উত্থানে লেনদেন শেষ হয়েছে। তবে এ বাজারে আগের দিনের চেয়ে লেনদেন কমেছে। তবে অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচক ও লেনদেন বেড়েছে।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ডিএসইতে ৫৪৪ কোটি ৪৪ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে, যা আগের দিনের চেয়ে ৬৮ কোটি ৩৪ লাখ টাকা কম। মঙ্গলবার ডিএসইতে ৬১২ কোটি ৭৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছিল।

ডিএসইতে মোট লেনদেনে অংশ নেয় ৩২৪ কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১২৯টির, কমেছে ১৪৩টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৫২টির শেয়ার দর।

এদিকে ডিএসইএক্স বা প্রধান মূল্যসূচক ১৭ পয়েন্ট বেড়ে ৫ হাজার ৪১২ পয়েন্টে অবস্থান করছে। ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ৫ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১ হাজার ২৬৩ পয়েন্টে। আরডিএস৩০ সূচক ১১ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ২ হাজার ৯ পয়েন্টে।

ডিএসইর লেনদেনের সেরা কোম্পানিগুলো হলোÑ ইফাদ অটো, বারাকা পাওয়ার, বেক্সিমকো, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল, অগ্নি সিস্টেম, মবিল যমুনা বিডি, বিডিকম, ইউনাইটেড পাওয়ার, বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন ও লঙ্কাবাংলা ফাইন্যান্স।

দর বৃদ্ধির সেরা কোম্পানিগুলো হলোÑ পেনিনসুলা চট্টগ্রাম, আইসিবি ৩য় এনআরবি, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল, গোল্ডেন হার্ভেস্ট, প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্স, বারাকা পাওয়ার, প্রাইম ব্যাংক, আইসিবিএএমসিএল১ম ও মিরাকল ইন্ড্রাস্টিজ।

দর হারানোর সেরা কোম্পানিগুলো হলোÑ রিপাবলিক, প্রভাতি ইন্স্যুরেন্স, ফাস্ট ফাইনান্স, ফিনিক্স ইন্স্যুরেন্স, নদার্ন জুট, প্রগতি ইন্স্যুরেন্স, মার্কেন্টাইল ইন্স্যুরেন্স, প্রাইমলাইফ, ডিবিএইচ মিউচুয়াল ফান্ড ও অগ্রণী ইন্স্যুরেন্স।

অন্যদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সেঞ্জে (সিএসই) ৪০ কোটি ৮০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। সিএসইর সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৩৫ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১৬ হাজার ৭৩৬ পয়েন্টে। সিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ২৩৭ কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১০১টির, কমেছে ১০১টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৫টি কোম্পানির শেয়ার।

সিএসইর লেনদেনের সেরা কোম্পানিগুলো হলোÑ বারাকা পাওয়ার, গোল্ডেন হার্ভেস্ট, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল, বেক্সিমকো, বাংলাদেশ বিল্ডিং সিস্টেম, মবিল যমুনা বিডি, বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন, ন্যাশনাল ফিড মিল, সাইফ পাওয়ার ও ইসলামী ব্যাংক।
source : jonokontho



DSE NEWS
Post Date: 25 May, 2017

বস্ত্র খাতের প্রতিষ্ঠান প্যাসিফিক ডেনিমস লিমিটেড। শতভাগ রফতানিমুখী শিল্প ঘোষণা দিয়ে ২০১৬ সালের শেষভাগে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয় প্রতিষ্ঠানটি। প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে সংগৃহীত অর্থ থেকে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ঋণ পরিশোধের প্রতিশ্রুতি দিয়ে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয় কোম্পানিটি। কিন্তু পরবর্তীতে আইপিও থেকে বড় অংকের অর্থ সংগ্রহের পরও প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ব্যাংকের ঋণ পরিশোধ করেনি তারা।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, আইপিওর মাধ্যমে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির আগে প্যাসিফিক ডেনিমস লিমিটেড চারটি ব্যাংক ও তিনটি ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে অনাপত্তিপত্র (এনওসি) নিয়ে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) কাছে দাখিল করে। প্রতিষ্ঠানটিকে এনওসি দেয়া ব্যাংক চারটি হলো— অগ্রণী, প্রাইম, এনসিসি ও ব্যাংক এশিয়া এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠান তিনটি হলো— আইডিএলসি, আইআইডিএফসি ও ফার্স্ট ফিন্যান্স। প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছ থেকে এনওসি নেয়ার আগে পুঁজিবাজার থেকে সংগৃহীত অর্থ ও নিজস্ব তহবিল থেকে ঋণ পরিশোধের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল কোম্পানিটি। কিন্তু গত ফেব্রুয়ারিতে আইপিওর অর্থ হাতে পেলেও প্রতিশ্রুত ঋণ পরিশোধ করেনি প্যাসিফিক ডেনিমস, যদিও অর্থ পাওয়ার তিন মাসের মধ্যে ঋণ পরিশোধের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এ অবস্থায় পাওনা আদায়ে বিএসইসির শরণাপন্ন হয়েছে ব্যাংকগুলো । এরই মধ্যে ঋণের অর্থ আদায়ে পদক্ষেপ নেয়ার জন্য পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থাটির কাছে চিঠিও পাঠিয়েছে পাওনাদার এসব প্রতিষ্ঠান।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএসইসির মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মো. সাইফুর রহমান বণিক বার্তাকে বলেন, আইপিওর অর্থ থেকে ঋণ পরিশোধের জন্য নির্ধারিত টাকা কোম্পানিকে অবশ্যই পরিশোধ করতে হবে। এর ব্যত্যয় ঘটার কোনো সুযোগ নেই।

তিন মাস পেরিয়ে গেলেও কোম্পানিটি বেশির ভাগ ঋণ পরিশোধ করেনি জানালে তিনি বলেন, কী কারণে কোম্পানিটি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ঋণ পরিশোধ করতে পারেনি, সেটি আমরা খতিয়ে দেখছি। তবে কারণ যা-ই হোক না কেন, কোম্পানিকে অবশ্যই ঋণের অর্থ পরিশোধ করতে হবে।

প্যাসিফিক ডেনিমসের প্রসপেক্টাসে দেয়া তথ্য অনুসারে, ৩১ ডিসেম্বর ২০১৫ সমাপ্ত হিসাব বছরে প্যাসিফিক ডেনিমসের স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি মোট ঋণের পরিমাণ ছিল ৯০ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। এর মধ্যে দীর্ঘমেয়াদি ঋণের পরিমাণ ৭৯ কোটি ৭ লাখ ও স্বল্পমেয়াদি ঋণের পরিমাণ ১১ কোটি ৯১ লাখ টাকা। আর সর্বশেষ ২০১৬-১৭ হিসাব বছরের ৩১ মার্চ পর্যন্ত নয় মাসের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে, কোম্পানিটির মোট ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৭৩ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। এর মধ্যে ৫২ কোটি ১৩ লাখ টাকা দীর্ঘমেয়াদি ও ৯ কোটি ৩২ লাখ টাকা স্বল্পমেয়াদি ঋণ।

জানা গেছে, প্যাসিফিক ডেনিমসের দীর্ঘমেয়াদি ঋণের মধ্যে অগ্রণী ব্যাংকের প্রিন্সিপাল শাখায় ৫০ কোটি ৩ লাখ টাকার প্রকল্প ঋণ রয়েছে, যার বিপরীতে ৪৫০ শতাংশ জমি বন্ধক রাখা আছে। অগ্রণী ব্যাংকের কাছ থেকে এনওসি নেয়ার আগে ঋণ পরিশোধের বিষয়ে করা চুক্তি অনুসারে আইপিও তহবিল থেকে ১০ কোটি ও নিজস্ব তহবিল থেকে ২৫ কোটিসহ মোট ৩৫ কোটি টাকার ঋণ পরিশোধ করার কথা ছিল প্রতিষ্ঠানটির। কিন্তু চলতি বছরের ৭ ফেব্রুয়ারি আইপিওর অর্থ ব্যবহারের অনুমোদন পাওয়ার পর তিন মাসের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও অগ্রণী ব্যাংককে কোনো অর্থ পরিশোধ করেনি তারা। এ নিয়ে ব্যাংকটির কর্মকর্তাদের সঙ্গে প্যাসিফিক ডেনিমসের বেশ কয়েক দফা আলোচনা হলেও ঋণ পরিশোধের বিষয়ে কোনো অগ্রগতি হয়নি। ফলে ব্যাংকটির পক্ষ থেকে ঋণের অর্থ আদায়ে বিএসইসির কাছে চিঠি পাঠানো হয়।

তাছাড়া এনসিসি ব্যাংকের ফরেন এক্সচেঞ্জ শাখায় ১২ কোটি টাকার ঋণ রয়েছে প্যাসিফিক ডেনিমসের। ঋণ সমন্বয়ের উদ্দেশ্যে নেয়া এ ঋণের বিপরীতে কোম্পানির ২২ শতাংশ জমিও বন্ধক রয়েছে। এর মধ্যে আইপিও তহবিল থেকে এ ঋণ পরিশোধের প্রতিশ্রুতি দেয় কোম্পানিটি। তবে আইপিওর অর্থ বুঝে পাওয়ার পর মাত্র ২ কোটি টাকার ঋণ পরিশোধ করা হলেও বাকি আছে ১০ কোটি টাকার ঋণ। এনসিসি ব্যাংকের সঙ্গে এ নিয়ে প্যাসিফিক ডেনিমসের কয়েক দফা আলোচনা হলেও অবশিষ্ট ঋণ পরিশোধের বিষয়টি এখনো নিষ্পত্তি হয়নি। তাই ঋণের অর্থ আদায়ে এনসিসি ব্যাংকও বিএসইসির কাছে চিঠি দিয়েছে।

স্বল্পমেয়াদে প্রাইম ব্যাংকের কাছ থেকে ৪ কোটি ৯৯ লাখ ও ব্যাংক এশিয়ার কাছ থেকে ৫ কোটি ১৩ লাখ টাকার ঋণ নেয় কোম্পানিটি। এলটিআর (লোন এগেইনস্ট ট্রাস্ট রিসিট) হিসেবে নেয়া এ ঋণের আংশিক পরিশোধ করা হলেও এখনো বেশির ভাগ অর্থ বকেয়া রয়েছে।

এর বাইরে প্যাসিফিক ডেনিমসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. শফিউল আজম মহসিনের মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান উইলসন কোল্ড স্টোরেজের কাছে সোনালী ব্যাংকের ২৯ কোটি ৫১ লাখ টাকার খেলাপি ঋণ রয়েছে। সম্প্রতি সোনালী ব্যাংক আইপিওর অর্থ থেকে এ ঋণ পরিশোধে পদক্ষেপ নেয়ার জন্য বিএসইসির কাছে চিঠি পাঠিয়েছে।

এদিকে মূলধনি যন্ত্রপাতি ক্রয়ের উদ্দেশ্যে নেয়া প্রতিষ্ঠানটির ১১ কোটি ৪২ লাখ টাকা ঋণের মধ্যে আইডিএলসি ফিন্যান্সের ৩ কোটি ১১ লাখ টাকার বিপরীতে ১৩ দশমিক ৬৪ কাঠা জমি, আইআইডিএফসির ৩ কোটি ৩৯ লাখ টাকার বিপরীতে ১৩ দশমিক ৩৩ কাঠা জমি ও ফার্স্ট ফিন্যান্সের ৪ কোটি ৯০ লাখ টাকার বিপরীতে ৩৩ শতাংশ জমি বন্ধক রাখা আছে প্যাসিফিক ডেনিমসের। এর মধ্যে আইপিও তহবিল থেকে আইডিএলসিকে ১ কোটি, আইআইডিএফসিকে ১ কোটি ও ফার্স্ট ফিন্যান্সকে ১ কোটি টাকার ঋণ পরিশোধ করেছে কোম্পানিটি।

কোম্পানিটির প্রসপেক্টাস অনুসারে, আইপিওর মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে সংগৃহীত ৭৫ কোটি টাকার মধ্যে ২ কোটি ৬ লাখ ২০ হাজার টাকা আইপিওর ব্যয় নির্বাহের জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে। এতে তাদের নিট আইপিও আয় দাঁড়িয়েছে ৭২ কোটি ৯৩ লাখ ৮০ হাজার টাকা। এর মধ্যে অগ্রণী ব্যাংককে ১০ কোটি, এনসিসি ব্যাংককে ১২ কোটি, আইডিএলসি ফিন্যান্সকে ১ কোটি, আইআইডিএফসিকে ১ কোটি ও ফার্স্ট ফিন্যান্সকে ১ কোটি টাকা ঋণ বাবদ পরিশোধ করার কথা রয়েছে প্যাসিফিকের। ঋণ পরিশোধে কোম্পানিটির মোট ২৫ কোটি টাকা আইপিওর অর্থ পাওয়ার তিন মাসের মধ্যে ব্যয় করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

তবে প্যাসিফিক ডেনিমসের নিরীক্ষক মাহফিল হক অ্যান্ড কোংয়ের প্রতিবেদন বলছে, চলতি বছরের ৩১ মার্চ পর্যন্ত কোম্পানিটি মাত্র ৫ কোটি টাকা বা ২০ শতাংশ ঋণ পরিশোধ করেছে। বাকি রয়েছে ২০ কোটি টাকা বা ৮০ শতাংশ ঋণ। তাছাড়া আইপিও খাতে ব্যয়ের জন্য নির্ধারিত ২ কোটি ৬ লাখ ২০ হাজার টাকার মধ্যে ১ কোটি ৭১ লাখ ৭০ হাজার টাকা বা ৮৩ দশমিক ২৭ শতাংশ ও ভবন নির্মাণের জন্য ৬ কোটি ২৯ লাখ টাকা বা ২১ দশমিক ১১ শতাংশ অর্থ ব্যয় করেছে প্রতিষ্ঠানটি। মূলধনি যন্ত্রপাতি খাতে নির্ধারিত ১৮ কোটি ১০ লাখ টাকার মধ্যে এখন পর্যন্ত কোনো অর্থ ব্যয় করেনি কোম্পানিটি।

এদিকে মনগড়া আর্থিক প্রতিবেদন দাখিলেরও অভিযোগ রয়েছে প্যাসিফিক ডেনিমসের বিরুদ্ধে। পুঁজিবাজারে আসার ক্ষেত্রে টানা তিন বছর মুনাফায় থাকার বাধ্যবাধকতা থাকায় আইপিও প্রসপেক্টাসে ২০১১, ২০১২ ও ২০১৩ সালে যথাক্রমে ৭ কোটি ৫৯ লাখ, ৯ কোটি ১৬ লাখ ও ৯ কোটি ৩৮ লাখ টাকা মুনাফা দেখিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। যদিও সুবিধা নেয়ার জন্য ব্যাংকের কাছে ২০১১ সালে ১০ কোটি ৫৮ লাখ ও ২০১২ সালে ১১ কোটি ৯ লাখ টাকা লোকসান দেখায় তারা।

কোম্পানিটির এ ধরনের মনগড়া আর্থিক প্রতিবেদনের বিষয়টি স্বীকার করে কোম্পানি সচিব মো. সোরাব আলীও বলেন, ব্যাংকের কাছ থেকে সুবিধা নেয়ার জন্য ২০১১ ও ২০১২ সালে কোম্পানি মুনাফায় থাকলেও লোকসান দেখানো হয়।

ঋণ পরিশোধ না করার বিষয়ে তিনি বলেন, সংশ্লিষ্ট ব্যাংকগুলোর সঙ্গে আমাদের আলোচনা চলছে। দ্রুতই আমরা তাদের পাওনা টাকা দিয়ে দেব।

এদিকে শুল্ক বিভাগের দেয়া বন্ড সুবিধার মেয়াদও উত্তীর্ণ হয়ে গেছে প্যাসিফিক ডেনিমসের। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ৩১ মার্চ কারখানার বন্ডেড ওয়্যারহাউজ লাইসেন্সের মেয়াদ শেষ হয়েছে, যার প্রভাব পড়েছে প্রতিষ্ঠানটির ব্যাংকিং কার্যক্রমে। বিভিন্ন কারখানার ঋণপত্র নিতে হচ্ছে শতভাগ মার্জিনে। বিপুল পরিমাণ নগদ অর্থের উৎস ছাড়া শতভাগ মার্জিনে ঋণপত্র রফতানি খাতের নিয়মিত প্রক্রিয়ার মধ্যে পড়ে না বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

বিষয়টি স্বীকার করে নিয়ে কোম্পানি সচিব মো. সোরাব আলী বলেন, আমাদের বন্ড নিয়ে কিছু সমস্যা চলছে। এ কারণে শতভাগ মার্জিনে ঋণপত্র করতে হচ্ছে।

শতভাগ রফতানিমুখী শিল্প ঘোষণা দিয়ে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হলেও প্যাসিফিক ডেনিমস মূলত তৈরি পোশাকের প্রচ্ছন্ন রফতানিকারক। সাব-কন্ট্রাক্ট ভিত্তিতে তারা ব্যবসা করে থাকে। এক্ষেত্রেও প্রতিষ্ঠানটির কারখানা পরিচালনা কার্যক্রমে নানা অসঙ্গতি দেখা গেছে।

এ নিয়ে এক লিখিত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বণিক বার্তার পক্ষ থেকে প্যাসিফিক ডেনিমসের কারখানা পরিদর্শন করা হয়। সরেজমিন পরিদর্শনে গিয়ে দেখা যায়, প্রতিষ্ঠানটির কারখানা মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় নতুন চরচাষীতে প্রায় পাঁচ একরের ওপর স্থাপিত। মূল সড়ক থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার কারখানাটির শেড। একটি শেডের কারখানার দেয়াল ও ফটকে দুটি সাইনবোর্ড দেখা গেছে, যেখানে একটিতে লেখা প্যাসিফিক গ্রুপের এক প্রতিষ্ঠান প্যাসিফিক জিন্স কালেকশন লিমিটেডের নাম। অন্যটিতে লেখা প্যাসিফিক ডেনিমস লিমিটেডের নাম। এ সময় প্রতিষ্ঠানটির তিনজন শ্রমিক ও নিরাপত্তাকর্মীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, কারখানাটি সচল রয়েছে। প্রায় ৪০০ শ্রমিক কারখানায় কাজ করেন। আগে তিন শিফট এ কাজ হলেও বর্তমানে চলছে দুই শিফটে।

পূর্বানুমতি না নেয়ার কারণে কারখানার অভ্যন্তরে প্রবেশের সুযোগ পাওয়া যায়নি। কারখানা শেড ছাড়াও পার্শ্ববর্তী খালি জমিটিও কারখানার মালিক কর্তৃপক্ষের বলে দাবি করেন শ্রমিক ও নিরাপত্তাকর্মীরা।

কারখানাটির বিষয়ে শ্রম মন্ত্রণালয়ের অধীন কল-কারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন মুন্সীগঞ্জ কার্যালয়ের উপমহাপরিদর্শক জুলিয়া জেসমিন বলেন, আমাদের পরিদর্শনের সর্বশেষ হালনাগাদ তথ্য অনুযায়ী কারখানাটি সচল। এটি ‘সাব-কন্ট্রাক্ট’ পদ্ধতিতে পরিচালিত একটি কারখানা। কারখানা কার্যক্রম সম্প্রতি বন্ধ রয়েছে কিনা, তা পরিদর্শনসাপেক্ষে নিশ্চিত করা সম্ভব।

কারখানার ফিনিশিং বিভাগের একজন কর্মী বলেন, কারখানাটিতে কাপড় তৈরি হয়। আমি চার বছর ধরে কারখানায় কাজ করছি। এ সময়ের মধ্যে দীর্ঘদিনের জন্য কারখানা বন্ধ না থাকলেও কাজের পরিমাণ আগের তুলনায় কমে গেছে।

প্যাসিফিক ডেনিমসে উত্পাদিত পণ্যে ১০ শতাংশ কিংবা তার বেশি ক্রয় করে থাকে এমন প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা পাঁচটি। এগুলো হলো— ক্যাসিওপিয়া অ্যাপারেলস লিমিটেড, মেসি’স গার্মেন্টস লিমিটেড, অ্যালায়েন্স গার্মেন্টস লিমিটেড, চ্যান্সেলর গার্মেন্টস লিমিটেড ও কোয়ালিটি অ্যাপারেলস লিমিটেড।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এর মধ্যে দুটি বর্তমানে সচল আছে এবং তারা প্যাসিফিক ডেনিমসের সঙ্গে ব্যবসা অব্যাহত রেখেছে। আরেকটি কারখানা বন্ধ থাকলেও অন্য ইউনিটের মাধ্যমে প্যাসিফিক ডেনিমসের সঙ্গে ব্যবসা সচল রেখেছে।

জানতে চাইলে মেসি’স গার্মেন্টস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমদাদুল হক সিদ্দিকি বলেন, আমাদের কারখানা সচল আছে। প্যাসিফিক ডেনিমসের সঙ্গে আমাদের ব্যবসা অব্যাহত আছে। আমাদের কারখানায় তৈরি ডেনিম বটমস তৈরির জন্য প্যাসিফিক ডেনিমের সরবরাহ করা কাপড় ব্যবহূত হয়।

একই ধরনের তথ্য দেন চ্যান্সেলর গার্মেন্টস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাকির হোসেনও। তিনি বলেন, প্যাসিফিক ডেনিমসের সঙ্গে ব্যবসা করছি। ঋণপত্রের বিপরীতে তারা আমাদের পণ্য সরবরাহ করে।

অন্য একটি প্রতিষ্ঠান কোয়ালিটি অ্যাপারেলস লিমিটেডের রফতানি কার্যক্রম সচল আছে কিনা, এমন প্রশ্নের উত্তরে প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক এএম আখতার হোসেন বলেন, বর্তমানে বন্ধ আছে। তবে আমাদের অন্য একটি ইউনিটের মাধ্যমে প্যাসিফিকের সঙ্গে ব্যবসা অব্যাহত আছে।

source : bonik barta



EXCH
Post Date: 25 May, 2017
Honorable Investors, Good morning! Please make your investment decision based on company fundamentals, technical analysis, price level and disclosed information. Avoid rumor-based speculations.

REGL
Post Date: 25 May, 2017
Investors are requested to consider the following facts at the time of making investment decision in the Capital Market: 1. Without acquiring proper knowledge, information and experience regarding different aspects and matters of Capital Market, one should not invest in the Capital Market. 2. The gain or loss, whichever comes from the investment, it belongs to you. So, well - thought of investment decision based on knowledge and fundamentals of the securities may be real assistance to you. (cont.)


REGL
Post Date: 25 May, 2017
(Continuation of BSEC News - Awareness Message for Investors ) 3. Do not pay any heed to rumors at the time of trading shares; it may cause loss to you. Even spreading rumor is legally prohibited. (Ref.: SEC letter no. SEC/SRMIC/2010/726 dated November 23, 2010).(end)

EXCH
Post Date: 25 May, 2017
(Repeat): While making investment decision in the Capital Market, INVESTORS should not rely on any information obtained from an unauthorized source such as facebook etc.

EXCH
Post Date: 25 May, 2017
Training Program on Compliance and Associated Issues: Due to unavoidable circumstance the program has been rescheduled to be held on June 11-15 , 2017 at 2:30 pm-5:00 pm instead of May 21-25, 2017 For registration and information, interested participants are requested to contact DSE Training Academy, 9/G Building (5th floor), Motijheel C/A, Dhaka-1000. Phone 9564601, 9576210-18, Ext. nos. 157, 158 or Email at training@dse.com.bd. N.B. Those who are already registered need not to register further.


BERGERPBL
Post Date: 25 May, 2017
The Board of Directors has recommended 425% final cash dividend (i.e. total 600% cash dividend considering 175% interim cash dividend paid earlier) for the 15 months period from January 01, 2016 to March 31, 2017. The Board of Directors has further recommended to enhance the maximum number of Directors to fifteen from existing ten through amendment of Article 109 of the Articles of Association of the Company through "Special Resolution". Date of AGM: 16.07.2017, Time: 10:00 AM, (cont.)

BERGERPBL
Post Date: 25 May, 2017
(Continuation News of BERGERPBL): Venue: International Convention City (Pushpoguscho, Hall No.-2), Bashundhara, Joarsahara, Dhaka. Record Date: 14.06.2017. The Company has also reported Consolidated EPS of Tk. 109.00, Consolidated NAV per share of Tk. 249.51 and Consolidated NOCFPS of Tk. 116.37 for the 15 months period from January 01, 2016 to March 31, 2017 as against Tk. 77.23, Tk. 186.42 and Tk. 117.98 respectively for the 15 months period from October 01, 2014 to December 31, 2015.(end)

BERGERPBL
Post Date: 25 May, 2017
There will be no price limit on the trading of the shares of the Company today (25.05.2017) following its corporate declaration.


PREMIERBAN
Post Date: 25 May, 2017
Trading of the shares of the Company will resume on 28.05.2017 after record date.

JANATAINS
Post Date: 25 May, 2017
Trading of the shares of the Company will resume on 28.05.2017 after record date.

SONARBAINS
Post Date: 25 May, 2017
Trading of the shares of the Company will resume on 28.05.2017 after record date.


FEDERALINS
Post Date: 25 May, 2017
Trading of the shares of the Company will resume on 28.05.2017 after record date.

DELTALIFE
Post Date: 25 May, 2017
Trading of the shares of the Company will resume on 28.05.2017 after record date.

EXCH
Post Date: 25 May, 2017
(Repeat): During the month of Holy "Ramadan" of Hijri 1438, the trading of DSE will start at 10:00 AM and continue till 2:00 PM. DSE office will remain open from 9:00 AM to 3:30 PM.


EXCH
Post Date: 25 May, 2017
Today's (25.05.2017) Total Trades: 88,771; Volume: 162,401,351 and Turnover: Tk. 5,239.194 million.

MERCANBANK
Post Date: 25 May, 2017
Emerging Credit Rating Limited (ECRL) has assigned the Initial rating of the Company as "AA" in the long term and "ST-2" in the short term along with a Stable outlook based on financials of the Company up to December 31, 2016 and other relevant quantitative as well as qualitative information up to the date of rating declaration.

ISLAMIBANK
Post Date: 25 May, 2017
Excel Dyeing & Printing Limited, one of the Corporate Directors of the Company, has further reported that it has completed its buy 32,038,814 shares of the Company at prevailing market price through Stock Exchange as announced earlier.


ISLAMIBANK
Post Date: 25 May, 2017
Islamic Development Bank (IDB), one of the Corporate Directors of the Company, has further reported that it has completed its sale of 86,939,960 shares of the Company at prevailing market price through Stock Exchange as announced earlier.

PRIMEBANK
Post Date: 25 May, 2017
The Company has informed that it has disbursed cash dividend for the year ended on December 31, 2016 to the respective shareholders' Bank Account through BEFTN. The Shareholders, whose accounts could not be credited due to inadequate information or bounced back for any reason, shall be paid through issuance of Dividend Warrants and sent by Courier Services at the recorded address.

MERCANBANK
Post Date: 25 May, 2017
Mr. Md. Nasiruddin Choudhury, one of the Sponsors of the Company, has expressed his intention to receive 18,41,700 shares of the Company from his wife Mrs. Khaleda Shahzadi, by way of gift outside the trading system of the Exchange within next 30 working days from the date of issuance of approval letter by DSE.


BDF
Post Date: 25 May, 2017
Withdrawal of Authorized Representatives: BD Finance Securities Ltd., DSE TREC No. 30, has withdrawn four of its Authorized Representatives, Mr. Md. Bashir Ahmed, Mr. Mohammad Nazrul Islam Bhuiyan, Mr. Chandan Kumar Saha and Mr. Sanjib Kumer Saha, with immediate effect.

ORIONPHARM
Post Date: 25 May, 2017
Credit Rating Agency of Bangladesh Limited (CRAB) has announced the Entity rating (Surveillance) of the Company as "A1" along with a stable outlook based on un-audited financial statements as of December 31, 2016, audited financial statement of the Company up to June 30, 2016; bank liability position as of April 30, 2017 and other relevant quantitative as well as qualitative information up to the date of rating declaration.

DBH
Post Date: 25 May, 2017
The Company has informed that Mr. Nasir A Choudhury and Dr. A M R Chowdhury, have been elected as the Chairman and Vice-Chairman of the Company respectively.


YPL
Post Date: 25 May, 2017
Credit Rating Agency of Bangladesh Limited (CRAB) has announced the Entity rating (Surveillance) of the Company as "BBB2" along with a stable outlook based on audited financial statement of the Company up to June 30, 2016, un-audited 9 months management prepared financial statements as on March 31, 2017; bank liability position as on May 02, 2017 and other relevant quantitative as well as qualitative information up to the date of rating declaration.